জন্মবিরতিকরণ পিল সেবনে যা জেনে রাখা জরুরি

0

ব্যস্ততা এবং সচেতনতা দুটিই এখন বেড়ে যাবার ফলে দুটি বাচ্চার মাঝখানে সব দম্পতিই একটু গ্যাপ রাখতে চান। এসময়ে জন্মনিয়ন্ত্রণের জন্য কেউই দীর্ঘমেয়াদি পদ্দতি নিতে চান না। বরং সহজেই শুরু এবং বন্ধ করা যায় এমন পদ্ধতিই খুঁজে নিতে চান। জন্মনিয়ন্ত্রণ পিল সম্পর্কে বিবাহিত নারীরা বেশ পরিচিত। কেননা অনাকাঙ্খিত গর্ভরোধে জন্মনিরোধক পিল সেবন বাংলাদেশে বহুল প্রচলিত একটি পদ্ধতি। কিন্তু পিল খাওয়ার ক্ষেত্রে নারীদের অনেক বিষয় জানা প্রয়োজন। কিছু কিছু সময় রয়েছে যে সময়গুলোতে পিল খাওয়া মোটেই ঠিক নয়। অনেক নারী রয়েছেন যাদের ক্যান্সার, যকৃতের অসুক, হৃদরোগ, অস্বাভাবিক রক্তক্ষরণসহ বিভিন্ন সমস্যা রয়েছে। তাদের ক্ষেত্রে পিল খেতে নিষেধ করেন চিকিৎসকরা।

বিশেষ বিশেষ কিছু ক্ষেত্রে জন্মবিরতিকরণ পিল খাওয়া হতে পারে বিপত্তি। তাই জেনে নেই তেমন কিছু অবস্থার কথা-

হৃদরোগ থাকলে: হৃদরোগে জন্মবিরতিকরণ পিল নিষিদ্ধ বলে চিকিৎসকরা মনে করেন। কারণ স্ট্রোক, হার্টে বা আর্টারিতে কোনো ব্লক থাকলে হৃদরোগের চিকিৎসা নেয়ার সময় অবশ্যই ডাক্তারকে জানাতে হবে।

ক্যান্সার আক্রান্ত হলে : স্তন কিংবা যৌনাঙ্গের ক্যান্সারের রোগীদের ক্ষেত্রে জন্মবিরতিকরণ পিল খেলে হতে পারে বিপত্তি। কারণ ইস্ট্রোজেন ও প্রোজেস্টেরন সমন্বিত পিল ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ায়।

চল্লিশোর্ধ্ব নারীর ক্ষেত্রে : জন্মবিরতিকরণ পিল মূলত তরুণীদের জন্য উপযোগী। তাই চল্লিশোর্ধ্ব নারী যদি জন্মনিয়ন্ত্রণে জন্য পিল খেতে চান তাহলে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে। চল্লিশোর্ধ্ব নারীদের শরীরে হরমোনের নানা ধরনের পরিবর্তন আসে। এছাড়া হাড়ক্ষয় ও হৃদরোগের ঝুঁকিও বাড়ে।

যদি থাকে যকৃতের অসুখ : কোনো নারীর যদি লিভারজনিত কোনো অসুখ থাকে তার জন্য পিল খাওয়া ঠিক নয়। এছাড়া পূর্বে হেপাটাইটিস বি বা সি ও অপারেশন হওয়ার কোনো ইতিহাস থাকলে তা অবশ্যই ডাক্তারকে জানান।

অস্বাভাবিক রক্তক্ষরণের সমস্যা থাকলে : যদি আপনার যোনিপথে অস্বাভাবিক রক্তক্ষরণ বা রক্তস্রাব হয়, এক্ষেত্রে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে। চিকিৎসা হওয়ার আগ পর্যন্ত জন্মবিরতিকরণ পিল খাওয়া অনুচিত।