অফিসে খাওয়া দাওয়া

0

সকাল ৯টা বা, ১০টায় অফিসে ঢুকছেন, বের হচ্ছেন ৬টার পরে। দিনের বড় একটা সময় কাটাতে হচ্ছে অফিসের চেয়ারে বসে। মগজের পরিশ্রম হলেও সারাদিনে শারীরিক পরিশ্রম নেই বললেই চলে। আর এ নিয়মে চলার কারণে শরীরের জমছে বাড়তি মেদ।

তবে প্রতিদিনের এই বাঁধাধরা নিয়মে কিছুটা পরিবর্তন আনলেই শরীরের ওজন বৃদ্ধি থেকে রক্ষা পাওয়া যায়। স্বাস্থ্যবিষয়ক একটি ওয়েবসাইটে প্রকাশিত কিছু পন্থা এখানে দেওয়া হল।

ফাইবারযুক্ত সালাদ
দুপুরে বাইরে খাওয়ার অভ্যাস ত্যাগ করুন। পরিবর্তে ঘরে বানানো সালাদ খান। চেয়ারে বসে থাকার কারণে সব থেকে বেশি মেদ জমে কোমরে এবং পেটে। আর এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে পেট ভরে সালাদ খেতে পারেন। কারণ ঘরে বানানো সালাদে ক্যালরির পরিমাণ খুবই কম থাকে। আর প্রচুর পরিমাণে ফাইবার পাওয়া যায়।

সালাদে তাজা সবজি এবং ফলমূলের পাশাপাশি যুক্ত করতে পারেন সবজি প্রোটিন। যেমন- ছোলা, সয়ার সঙ্গে পরিমাণ মতো মুরগির মাংস ইত্যাদি। তবে সালাদে চিজ, সস এবং মেয়োনেইজ ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন।

প্রতিদিনের সালাদ তৈরির উপাদানে ভিন্নতা আনা জরুরি। না হলে একঘেয়ে লাগবে।

হালকা ব্যায়াম করুন
দুপুরে অথবা অফিসের শেষে যখনই সময় পাওয়া যায় তখনই ঘরে বসে না থেকে বা ফেইসবুকিং না করে বরং কিছুক্ষণ হাঁটাহাঁটি করুন, সেটা ঘরে কিংবা বাইরে। সাইকেল চালাতে ভালোলাগলে সেটিও করতে পারেন বা ইয়োগা বা জিমে ভর্তি হয়ে যেতে পারেন।

সারাদিন বসে থাকলে যে শুধু পেটে মেদ জমবে তা নয়, পুরো শরীরের জন্যই এটি ক্ষতিকর। তাই নিয়ম করে ঘাম ঝরানো উচিত।

হালকা ক্ষুদায় কম ক্যালোরির স্বাস্থ্যকর স্ন্যাক্স
হালকা ক্ষুদা মেটাতে কাপকেক, বিস্কুট, চিপস ইত্যাদি খাওয়ার অভ্যাস ত্যাগ করুন। বরং দই, ফলমূল, সবজি, লো ফ্যাট ক্র্যাকার, বাদাম ইত্যাদি খাবার খেতে পারেন নাস্তায়। এতে করে ওজন বেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা কমে আসবে অনেকটাই।

পানি পান করুন বেশি
ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে চাইলে কোমল পানীয় খাওয়ার অভ্যাস ত্যাগ করতে হবে। ১২ আউন্স কোকে আছে প্রায় ১৪৩ ক্যালোরি। আর এই বাড়তি ক্যালরি শরীরের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর। প্রতিদিন শুধু পানি পানের পরিমাণ বাড়ান। পানি যে শুধুই ক্যালরি ফ্রি তা নয়, পানি খেলে ক্ষুদার পরিমাণও কমে আসবে।