ঈদের দিনের পোশাক ও সাজ

0

তানিয়া নাজনীন// ঈদের সঙ্গে সাজসজ্জার নিবিড় সম্পর্ক। ঈদ আসার মাসখানেক আগেই অর্থাৎ রমজান আসার আগেই পড়ে যায় কেনাকাটার ধুম। দোকানে থরে থরে সাজানো থাকে বিভিন্ন মূল্যের বিভিন্ন রকমের পোশাক ও প্রসাধন সামগ্রী। বাড়ে ভিড়, বাড়ে যানজট। সব কিছু উপেৰা করে নিজের সামর্থ্য অনুযায়ী সবাই মেতে ওঠে কেনাকাটায়। আর কিনেও ফেলেন।

পোশাক ও প্রসাধন কেনার আগে ঈদের দিন ও রাত এবং পরে দিন কি পরবেন, কেমন হবে আপনার প্রসাধন তা ঠিক করে নিন। কারণ সকাল বা দিনের সাজ হবে হাল্কা ও নমনীয় আর সন্ধ্যা বা রাতের প্রসাধন হবে ভারি জমকালো। পরদিন কোথাও বেড়াতে গেলে সে পোশাক ও প্রসাধন হবে মাঝামাঝি।

ঈদের দিনের সাজ
প্রথমেই নির্বাচন করুন ঈদের দিনের সাজে শাড়ি পরবেন না সালোয়ার-কুর্তা। তবে শাড়িতে বাঙালী নারীকে যতটা আকর্ষণীয় করে অন্য কোন পোশাকে তা করে না। যদিও নারীরা আজকাল বিশেষ কোন অনুষ্ঠান ছাড়া শাড়ি পরছেন না। তারপরও শাড়ির সঙ্গে অন্য কোন পোশাকের তুলনা চলে না। তাই ঈদের দিনে আপনার প্রথম নির্বাচন হোক শাড়ি। সাদা খোলের ওপর লাল বা কমলা বা মেরুন-কালো প্রিন্টেড সিল্ক শাড়ির আঁচলে কাজ-মধুবনী নকশার সঙ্গে মুক্তোর অলঙ্কার ঈদের দিনের সাজে আদর্শ। এ ছাড়া টাঙ্গাইলের তাঁতের শাড়ি সকালে পরতে পারেন। শরতের সি্নগ্ধ নরম আবহাওয়ায় সাদা জমিনে বাহারি পাড়, অাঁচলে নকশা কিংবা লাল-হলুদ কালার কম্বিনেশনে শাড়ি আপনার সাজে আনবে অন্যমাত্রা।

শুধু তরম্নণীদের জন্য নয়, বয়স্কাদের জন্য আছে নানা ধরনের, ডিজাইনের তাঁতের শাড়ি। ঈদ আসার আগে তাঁতের শাড়িতে নতুন চিনত্মা-ভাবনায় তৈরি করেন বাহারি ডিজাইন, বাহারি কম্বিনেশন। তাঁতের শাড়িতে বস্নকের মাধ্যমে যেমন স্থান করে নিয়েছে কবিতার পঙ্ক্তি, তেমনি তুলির অাঁচড়ে উঠে এসেছে শিল্পীর মনের ভাব। তাছাড়া এমব্রয়ডারি, কেট-ওয়ার্ক, ব্রাশ প্রিন্ট ব্যবহার করা হয়েছে। দিনের সাজে পিংক, লেমন, বস্নু রঙ মানাবে ভাল।

সালোয়ার-কুর্তাও পছন্দ করতে পারেন। এই পোশাকের একটি সুবিধা খুব স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করা যায়। আরেকটি একই সঙ্গে ধারণ করে পূর্বের ফ্যাশন, পশ্চিমের স্টাইল। কুর্তায় আটকে নিতে পারেন কড়ি বসানো বোতাম, বস্নক প্রিন্ট ও ব্রাশ প্রিন্ট। এমব্রয়ডারি এখন ফ্যাশনের তুঙ্গে। এঙ্ক্লুসিভ ডিজাইনের এমব্রয়ডারি করিয়ে নিতে পারেন।

ঈদের দিনের প্রসাধন
মুখ পরিষ্কার করে ময়েশ্চারাইজার, এ্যাসট্রিনজেন্ট ও সানস্ক্রিন লাগাতে ভুলবেন না। কারণ ঈদের দিন বলে সূর্য কিন্তু ছুটি নেয়নি। তার রশ্মির তেজ প্রখর। মুখ পরিষ্কার করে কমপ্যাক্টের এক পোঁচ লাগিয়ে নিন। দিনে বস্নাশঅন লাগানোর দরকার নেই। তবে চোখের চাহনিতে চটক আনতে চোখে এঁকে নিতে পারেন কাজল। বেশ নমনীয় রেখা অাঁকতে ব্যবহার করম্নন কাজল পেনসিল তার ওপর হালকা করে বুলিয়ে নিন লাইনারের রেখা। দিন মাসকারার এক পোঁচ। উপর-নিচ দু’দিকেই। আইব্রাও পেনসিল লাগাবার দরকার নেই। কপালে টিপ, পোশাকের সঙ্গে মানিয়ে লিপস্টিক ও নেইল পলিশ।

ঈদের সান্ধ্য সাজ
সন্ধ্যা বা রাতের সাজের জন্য বেছে নিন সিল্ক, ঢাকাই জামদানি, কাতান, সাউথ ইন্ডিয়ান সিল্ক, পাড় বসানো কোটা ইত্যাদি।
সিল্কের ওপর রেশমি সুতা আর কাঁচের কাজ করা ময়ূরকণ্ঠী অথবা অফ হোয়াইট বা বেস কালারের সিল্ক শাড়িতে ব্রাশ প্রিন্ট অথবা জরিপাড়, বড় অাঁচলের বুটিদার কাতান আপনার সাজে আনবে অভিজাত্য। গয়নাও হবে সোনার অথবা জয়পুরী ইমিটেশন। বেছে নিন অভিজাত ডিজাইনের। অল্প বয়সীদের জন্য হাল্কা গয়নাও ভাল লাগবে। সেটা নির্ভর করবে আপনার রম্নচি ও বয়সের ওপর। সেলোয়ার কুর্তাও সেভাবে বেছে নিন।

ঈদের সান্ধ্য সাজে প্রসাধন
দামী শাড়ি গয়নার সঙ্গে প্রসাধনও হওয়া চাই নিখুঁত। প্রথমে মুখ পরিষ্কার করে ময়েশ্চারাইচার লাগিয়ে নিন। সন্ধ্যায় সানস্ক্রিন নিষ্প্রয়োজন। এ সময় মুখে লাগাতে পারেন তরল মেকআপ। অবশ্যই ত্বকের সঙ্গে মিলিয়ে এটা লাগাবার সময় গলা ও কানের দিকেও নজর দিন। তারপর গালের ঠিক উপরিভাগে বুলিয়ে দিন বস্নাশার, তাও ত্বক ও সাজের সঙ্গে মিলিয়ে। চোখের পাতায় তিন রঙের শেড বা একটি কালারও ব্যবহার করতে পারেন। উৎসবে শাড়ির রঙের সঙ্গে ম্যাচ করে লাগালেই সুন্দর লাগবে। এমনভাবে ব্যবহার করতে হবে যাতে তিনটি রঙ ভালভাবে মিশে যায়। ভ্রূর হাড়ের ওপর ব্যবহার করতে পারেন হোয়াইট সিলভার, পার্ল অথবা গোল্ডেন কালার। যাতে ভ্রূর হাড়টি উঁচু দেখায়। আইশ্যাডো শুধু চোখের উপরের পাতায় লাগান। যদি চান তাহলে চোখের পাতার কোণ পর্যনত্ম আইশ্যাডো লাগাতে পারেন। এতে আপনার সাজে আসবে উৎসবের জমকালো চমক।

আইশ্যাডো লাগানোর পর আই লাইনারের পালা। চোখের স্বাভাবিক রেখা ধরেই লাগাতে পারেন গাঢ় বাদামি রঙের আই পেনসিলের রেখা। চোখের কোলে সরম্ন করলেও চোখের কোণের দিকে সামান্য মেটা করে দিন। চোখের পাতায় ঘন করে মাসকারা লাগান। লিপস্টিক লাগানোর আগে লিপ ব্রাশ অথবা লিপ পেনসিল দিয়ে ঠোঁটের চারধার আউটলাইন অাঁকুন। পোশাকের সঙ্গে মানানসই লিপস্টিক লাগান। রাতে সাজের প্রধান অঙ্গ কপালের টিপ। আপনার মুখের আদল অনুযায়ী কপালে টিপ এঁকে নিন। আজকাল কন্ট্রাস্ট টিপ চলছে। আপনিও তাই দিতে পারেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

*