মেডিকেল প্রশ্ন ফাঁসের তদন্তে কমিটি গঠনের দাবি

0

মেডিকেল কলেজে ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগ এনে সত্যতা প্রমাণে একটি স্বাধীন তদন্ত কমিশন গঠনের দাবি জানিয়েছে ছাত্র-অভিভাবক ঐক্য ফোরাম। শনিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এই দাবি জানানো হয়। সংবাদ সম্মেলনে প্রশ্নপত্র ফাঁসের বিষয়ে সংগঠনের পক্ষ থেকে কিছু তথ্যও উপস্থাপন করা হয়। এছাড়া আজ সারা দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এই আন্দোলনে সংহতি প্রকাশ করে শিক্ষার্থীদের ক্লাস বর্জনের আহ্বান জানানো হয়।
সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের সমন্বয় পরিষদের সদস্য ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থী আশেক বীণ ত্বাকি মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার একসেট প্রশ্ন দেখিয়ে বলেন, প্রশ্ন যদি ফাঁস না হয় তাহলে আমাদের কাছে এটা আসছে কিভাবে? তিনি বলেন, একজন সাংবাদিক এ প্রশ্ন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের কাছে সরবরাহ করেছেন।

এ সময় প্রশ্নপত্র ফাঁসের প্রমাণ হিসেবে তারা একটি ফেসবুক এবং একটি টেলিফোন কথোপকথন প্রজেক্টরের মাধ্যমে উপস্থাপন করেন। প্রজেক্টরে ফেসবুকের মাধ্যমে ফাঁস হওয়া প্রশ্নপত্র দেখিয়ে ভর্তি পরীক্ষা যে প্রশ্নপত্রে অনুষ্ঠিত হয়েছে সেটির সঙ্গে ৭৭টির মিল রয়েছে বলে দাবি করা হয়। একই সঙ্গে ফাঁস হওয়া প্রশ্নে পরীক্ষা দিয়ে এক শিক্ষার্থী ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে ভর্তির সুযোগ পেয়েছে দাবি করে মোবাইল ফোনে তার রেকর্ড করা কথোপকথন শোনানো হয়। এ সময় তিনি বলেন, মেডিকেলের প্রশ্নপত্র সরকারি মুদ্রণ প্রতিষ্ঠান বিজি প্রেস থেকে ছাপানো হয়েছে। মেডিকেলের প্রশ্নপত্র বিজি প্রেস নয় স্বাস্থ্য অধিদফতরের নিজস্ব প্রেসে ছাপানো হয়- কয়েকজন সাংবাদিক এই তথ্য দিলে ত্বাকি বলেন, প্রশ্নপত্র কোথায় ছাপা হয়, বিষয়টি তার জানা ছিল না। আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে ত্বাকি প্রশ্নপত্র ফাঁসের সত্যতা যাচাইয়ে একটি বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠনের দাবি জানান। এছাড়া আজকের কর্মসূচি হিসেবে সকাল ১০টায় শহীদ মিনারে অবস্থান এবং দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ক্লাস বর্জনের আহ্বান জানান ত্বাকি।

তবে সংগঠনের সমন্বয় পরিষদের অভিভাবক প্রতিনিধি আশরাফ কামাল তদন্ত কমিশন আইন ১৯৫৬-এর আওতায় একটি কমিশন গঠনের দাবি জানান। এ সময় তিনি বলেন, আগামী সোমবার স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম তার মনোনীত একজন সংসদ সদস্যের মাধ্যমে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আলোচনার প্রস্তাব জানিয়েছেন। প্রস্তাবের পরিপ্রেক্ষিতে ফোরামের পক্ষ থেকে বৈঠকে সাংবাদিকদের উপস্থিতিতে উন্মুক্ত আলোচনার প্রস্তাব দেয়া হয়েছে। গণমাধ্যম কর্মীরা সংসদ সদস্যের নাম ও আলোচনার স্থান সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি আপাতত সে বিষয়ে জানাতে অপারগতা প্রকাশ করেন।

ছাত্র-অভিভাবক ফোরামের এ বক্তব্যের বিষয়ে জানতে চাইলে স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেন, তিনি এ ধরনের আলোচনার কোনো প্রস্তাব দেননি। এমনকি এ সম্পর্কে তার জানা নেই। তিনি বলেন, মেডিকেল কলেজে ভর্তি পরীক্ষার বিষয়ে যা বলার সংবাদ সম্মেলনে সবকিছু বলেছি। তাই নতুন করে এ বিষয়ে আলোচনার কিছু নেই। তবে সংশ্লিষ্টদের কোনো অভিযোগ থাকলে তারা তা স্বাস্থ্য অধিদফতরে পৌঁছে দিতে পারেন বলে জানান মন্ত্রী।

এর আগে শনিবার সকাল ১০টায় মেডিকেলে ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগে ফল বাতিল ও আবার পরীক্ষা নেয়ার দাবিতে ছাত্র-অভিভাবক ঐক্য ফোরামের ব্যানারে আন্দোলনকারীরা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে জড়ো হয়। সেখান থেকে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে তারা মিছিল সহকারে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে অবস্থান নেয়। এ সময় ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীর চেয়ে সংহতি জ্ঞাপনকারী বাম ছাত্র সংগঠনের নেতাকর্মীর সংখ্যাই বেশি ছিল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

*